বৃহস্পতিবার, ১৯শে এপ্রিল, ২০১৮ ইং। ৬ই বৈশাখ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ। রাত ১১:২৫








প্রচ্ছদ » বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি

মহাকাশ বিজ্ঞান নিয়ে পৃথিবীর বুকেই হুবুহু মঙ্গল গ্রহের আদলে আরব আমিরাতের বিস্ময়কর শহরে যা থাকছে !

মহাকাশ বিজ্ঞান নিয়ে গবেষণায় মার্কিন সংস্থা নাসা যেখানে পৌঁছেছে সেখানে পৌঁছানোর কল্পনাও হয়তো এই মুহূর্তে অন্য কেউ করতে পারবে না। কিন্তু আধুনিক বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি নিয়ে বরাবরই কৌতূহলী সংযুক্ত আরব আমিরাতের দুবাই এবার একটি বিষয়ে নাসাকে টেক্কা দিতে চাইছে। আর তা হচ্ছে ‘মঙ্গলের শহর’। মঙ্গল গ্রহ নিয়ে মানুষের কৌতূহলের শেষ নেই। এই গ্রহে যদি মানুষ বাস করতে পারত, সেখানকার শহরগুলোতে থাকার অভিজ্ঞতা কেমন হতো, তা হাতেকলমে মানুষকে দেখাতে চাইছে দুবাই। আর এর সরাসরি তত্ত্বাবধানে থাকবেন আমিরাতের রাষ্ট্রপ্রধান নিজেই।

 

ভিডিওটি দেখতে এখানে ক্লিক করুন...

আয়োজকেরা জানিয়েছেন, দূর থেকে দেখলে মনে হবে লালমাটির ওপর কেউ যেন সযত্নে ছড়িয়ে দিয়েছে একমুঠো মুক্তো। কিন্তু কাছে গেলেই বোঝা যাবে- এগুলো তো বাড়ি! দেখতে অনেকটা এস্কিমোদের ইগলুর মতো। কিন্তু আকৃতিতে বড়। বাড়ির দরজা খুলে ভেতরে ঢুকলেই দেখা যাবে ডালপালা মেলে দাঁড়িয়ে রয়েছে প্রকাণ্ড সব বৃক্ষ। তার ফাঁকেই সাজানো-গোছানো সংসার।

 

অদূর ভবিষ্যতে এমনই একটা প্রকাণ্ড শহর হয়তো গড়ে উঠবে মঙ্গলের মাটিতে। ভিনগ্রহের সেই শহরের নকশা বানিয়েছে মার্কিন বিশ্ববিদ্যালয় ম্যাসাচুসেটস ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজির (এমআইটি) বিজ্ঞানীরা। নাম রাখা হয়েছে ‘রেডউড ফরেস্ট’।

নকশা অনুযায়ী, একটি বাড়িতে অন্তত ৫০ জন থাকতে পারবেন। শোওয়া-বিশ্রামের পাশাপাশি থাকবে বেশ খানিকটা খোলা জায়গা। পানির কষ্ট যাতে না থাকে, তার জন্যেও আলাদা পরিকল্পনা রয়েছে বিজ্ঞানীদের।

 

ইগলুর ভেতরে থাকা বিশেষভাবে তৈরি গাছগুলোর নিচে সুড়ঙ্গের মতো চলে যাবে শিকড়। ওই সুড়ঙ্গ-পথেই এক বাড়ি থেকে অন্য বাড়িতে যাতায়াত করবেন বাসিন্দারা। ক্ষতিকর মহাজাগতিক রশ্মি থেকে বাঁচতেই মাটির তলা দিয়ে রাস্তা তৈরির পরিকল্পনা। তা ছাড়া, মাঝেমধ্যেই উল্কাবৃষ্টিতে আক্রান্ত হয় লালগ্রহ মঙ্গল। খোলা আকাশের নিচে সেটাও একটা বিপদ। ঠিক সেই কারণেই ইগলুর মতো দেখতে গোটা বাড়িটা ঢাকা থাকবে সাদা আচ্ছাদনে।

 

নকশা তৈরিকারী নয় সদস্যের দলটির নেতৃত্বে রয়েছেন ভ্যালেন্টিনা সুমিনি এবং কেটলিন ম্যুলার। সুমিনি জানান, দৈনন্দিন কাজকর্মের জন্য ব্যবহার করা হবে মঙ্গলের মাটি, পানি, বরফ ও অবশ্যই সূর্যালোক।
তিনি বলেন, “ইচ্ছে করেই শহরটাকে জঙ্গলের চেহারা দিয়েছি আমরা। এটা অনেকটাই প্রতীকী। সবুজ যেভাবে বিস্তার লাভ করে, সেই ভাবনাটাকেই তুলে ধরা হয়েছে মঙ্গল-মডেলে।”

 

মাত্র ২০১৪ সালে ‘সংযুক্ত আরব আমিরাত মহাকাশ সংস্থা’ গঠন করা হয়েছে। পরের বছর স্থাপন করা হয় মোহাম্মদ বিন রশিদ স্পেস সেন্টার। এটুকু সময়ের মধ্যেই এই স্পেস সেন্টার দেশে তৈরি দুটি স্যাটেলাইট উেক্ষপণ করেছে। তবে এখানেই সন্তুষ্ট না থেকে দুবাই নজর দিয়েছে লাল গ্রহ মঙ্গলের দিকে। ২০২০ সাল নাগাদ মঙ্গলে যান পাঠানোর পরিকল্পনা নিয়েছে তারা। আর ভবিষ্যতে সেখানে মানব বসতি স্থাপনের পরিকল্পনা হাতে নিয়েছে।

 

কেমন হবে মঙ্গলে সেই মানব বসতি? কেমন হবে সেই শহরগুলো? এসব প্রশ্নের জবাব হাতে কলমে দিতে মরুভূমির বুকে দুবাই কর্তৃপক্ষ স্থাপন করতে যাচ্ছে মঙ্গল গ্রহের কল্পিত সেই শহরের এক ‘সিমুলেশন’। এর নাম দেয়া হবে ‘মার্স সায়েন্স সিটি’।

 

এতে ব্যয় ধরা হয়েছে ১ কোটি ৩৬ লাখ ডলার। প্রায় ২০ লাখ বর্গফুট এলাকা জুড়ে হবে এই মঙ্গলের শহর। শহরের স্থাপনাগুলো তৈরি করা হবে থ্রিডি প্রিন্টার ব্যবহার করে। এই শহরটি শূন্য থেকে অনেকটা সারি সারি গম্ভুজের মতো মনে হবে। নাসার বিজ্ঞানীরাও মঙ্গলের শহরের এ জাতীয় ‘দালানকোটা’ই কল্পনা করেছেন। কারণ মঙ্গলে খোলা পরিবেশে মানুষের শ্বাস-প্রশ্বাস নেয়ার মত পর্যাপ্ত অক্সিজেন না থাকায় অক্সিজেন যুক্ত কৃত্রিম বাতাসের ব্যবস্থা থাকতে হবে ওই শহরে।

 

দুবাইয়ের ‘মার্স সায়েন্স সিটির’ ভেতরের পুরোটাই থাকবে কৃত্রিম অক্সিজেনসহ মঙ্গলের মতোই সব ব্যবস্থা। অর্থাত্ এর ভেতর গেলে আসল মঙ্গল গ্রহে বেড়ানোর অভিজ্ঞতা হুবহু পাওয়া যাবে। এই শহরের গাছপালাও জন্মানো হবে এবং বাঁচিয়ে রাখা হবে কৃত্রিম আলো বাতাসেই। কর্তৃপক্ষ বলেছে, এটা হবে বর্তমানে বসে ভবিষ্যত্ দর্শনের ব্যবস্থা।

 

তোড়জোড় দেখে মনে হচ্ছে মানুষের মঙ্গলে অভিযান এখন কেবল সময়ের ব্যাপার। এই বিষয় সবচেয়ে বড় প্রশ্নটি হলো: মঙ্গলে পৌঁছানোর পরপরই সেখানে আমাদের জীবন-যাপন কেমন হবে? ইউনাইটেড আরব আমিরাত মঙ্গলের মতো একটি পরিবেশের অনুরূপ পৃথিবীতে একটি আস্ত শহর গড়ার মাধ্যমে এই প্রশ্নের উত্তর পেতে চেষ্টা করছে।

 

আরব আমিরাত সরকারের বার্ষিক সভায় ১৩৬ মিলিয়ন ডলারে নির্মিতব্য এই শহরের ঘোষনা দেওয়া হয়। এই শহরটির নাম হবে মার্স সায়েন্টিফিক সিটি (Mars Scientific City) এবং এটি মোহাম্মদ বিন রসিদ মহাকাশ কেন্দ্রের একটি দীর্ঘমেয়াদী পরিকল্পনার অংশ। এই পরিকল্পনার মধ্যে রয়েছে ২১১৭ সালের মধ্যে মঙ্গলে একটি মানব বসতি স্থাপন করা।
ড্যানিশ স্থপতি জার্ক ইঙ্গলেস আমিরাতের বিজ্ঞানী ও প্রকৌশলীদের সাথে নিয়ে এই মঙ্গল শহরের নকশা করেছেন। এর মধ্যে রয়েছে একশ্রেনী ভবিষ্যতদর্শী ডোমআকৃতির ভবন।

 

এর অভ্যন্তরে বেশ কিছু গবেষণাগার থাকবে যার মাধ্যমে খাবার, শক্তি এবং পানির চাহিদাপূরণের উপায় ইত্যাদি নিয়ে গবেষণা করা হবে। সেই সাথে এতে একটি জাদুঘর থাকবে যাতে মানবজাতির অদ্যাবধি সেরা সাফল্যগুলো তুলে ধরা হবে। শহরটি আমিরাতের মরুভূমির বালি হতে থ্রিডি প্রিন্টিংএর মাধ্যমে তৈরি করা হবে।

 

এই শহরে মঙ্গলের তুলনায় বেশ কিছু সীমাবদ্ধতা আছে। যেমন: মঙ্গলের মতো এখানে অক্সিজেন উৎপাদন করতে হবে না। তাছাড়া মঙ্গলের মতো এখানে বাসিন্দাদের ক্ষতিকর বিকিরণের মুখে পড়তে হবে না। মঙ্গলে চৌম্বকত্ব নেই বলে সেখানে অতিবেগুনী রশ্মি বর্মে ঢাকার মতো ব্যাবস্থা নেই।

 

তাছাড়া মঙ্গলের পৃষ্ঠের মাধ্যাকর্ষণ পৃথিবীর শতকরা ৩৮ শতাংশ। গড়ে এর তাপমাত্রা পৃথিবীর তুলনায় অনেক কম। গবেষণাগারে মঙ্গলের আবহাওয়া তৈরি করার চেষ্টা করা হবে এবং তাপ ও বিকিরণের সমস্যা প্রতিকার উপায়ও বের করার জন্য কাজ করা হবে। এই শহরের পরিকল্পনায় রয়েচে, একটি দল এর মধ্যে বসবাসের মাধ্যমে মঙ্গলের বিরূপ ও প্রতিকূল পরিবেশে টিকে থাকার কৌশল উদ্ভাবন করবেন।

 

অস্ট্রেলিয়ায় চালু হলো বিশ্বের বৃহত্তম লিথিয়াম ব্যাটারি
তোমার ঘরে সুন্দরী স্ত্রী আছে, তার দিকে নজর দাও: সোফিয়া
চালু হল গুগলের নতুন ফিচার ‘ফাইল গো’


সর্বশেষ সংবাদ

অনলাইনে মেয়েকে বিক্রি, বাবার ৬০ বছর জেল

চট্টগ্রামে তাবলিগ মসজিদে উত্তেজনা, পুলিশ-পাহারা

সজনে ডাঁটার ঔষধি গুণাগুণ

নতুন নিয়মে পিতৃত্বকালীন ছুটি এক মাস!

ফেব্রুয়ারির মধ্যে কঙ্গনার বিয়ে

মেয়ের চিকিৎসার টাকা যোগাতে বুকের দুধ বিক্রি!

রাজধানীতে নকল প্রযুক্তি পণ্যে সয়লাব বাজার

আইকন তালিকা থেকে বাদ পড়ল সাব্বির রহমান

শূন্যে ছুড়ে বাচ্চাকে আদর করলে হতে পারে মহাবিপদ!

রাজধানীতে ‘জঙ্গি’ অভিযানঃ নিহত ৩

দাম কমেছে পেঁয়াজের

বিমানবন্দর থেকে কাকরাইলে মাওলানা সাদ, সারাদেশ অচল করে দেয়ার হুমকি

‘আর কত বাঁধ হবে তিস্তার ওপরে?’

স্বামী-স্ত্রীর উচ্চতার পার্থক্যেই দাম্পত্য সুখের হয়

ছাত্রলীগের দু’গ্রুপের সংঘর্ষে খুলনায় আহত ৭

তাবলীগের আমীর মাওলানা সাদের বিতর্কিত যত বয়ান

দু’হাতে বল করে বিশ্বকে চমকে দিলেন কামিন্দু মেন্ডিস

উচ্চতা বৃদ্ধি নিয়ে ভুল তথ্যের জন্য জাপানি নভোচারীর দুঃখপ্রকাশ

পুলিশ বাহিনীকে আরও আন্তরিক হতে হবে: আবদুল হামিদ

ডিভোর্সের শীর্ষে শিক্ষিত নারীরা





error: Content is protected !!
Copy to clipboard